শীত এসেছে- বনানী সেনগুপ্ত

  • লেখা- বনানী সেনগুপ্ত
  • অলঙ্করণ- শুভ্রা
রাজকুমারী ইন্দুমতীর মনে বড় দুখ,
এত বড় রাজত্ব তবু নেইকো কোন সুখ।
রাজা রানী পাত্র মিত্র সবাই বসে ভাবে,
রাজকন্যার মুখে আবার ফুটবে হাসি কবে?
রাজামশাই মেয়ের মাথায় হাত বুলিয়ে বলে,
মুখ কেন ভার; মা রে আমার, বল দেখি তুই খুলে।
কে বকেছে কে মেরেছে কে দিয়েছে গাল?
মুক্তঝরা হাসি কেন দেখছি না আজকাল?
রাজকন্যে কয় না কথা, না হাসে, না খেলে,
মাঝে মাঝে বুকভাঙ্গা দীর্ঘশ্বাস ফেলে।
রাজ আদেশে মন্ত্রী তখন বলেন জনে জনে,
মোদের দেশের রাজকন্যার সুখ নেইকো মনে।
যে পারবে ফোটাতে কন্যার মুখে হাসি,
সোনা দানা মণি মুক্ত পাবে রাশি রাশি।
দেশ বিদেশের থেকে যত এলেন বিদুষক,
দেখে তাদের কীর্তি, হেসে গড়িয়ে পড়ে লোক।
লাভ হল না কিছুই তাতে, হাসেন না তো কন্যে,
সবাই ভাবে এমন ধারা হল কিসের জন্যে?
দাড়ি নেড়ে মন্ত্রী বলেন, শুনুন মহারাজ,
এই সমস্যার সমাধান নয়তো সহজ কাজ।
রাজবৈদ্য ডাকুন, উনি দেখে যাক এসে,
কন্যা দেখে রাজবৈদ্য বলে ওঠেন হেসে।
হয়নি কিছুই কন্যার আমার, হতেছে মোর সন্দ।
শীত এসেছে, ঠোঁট ফেটেছে, হয়েছে হাসি বন্ধ।
হাসতে গেলেই লাগছে ব্যথা, তাই হাসে না মেয়ে।
কোল্ড ক্রিম লাগিয়ে কন্যা হাসে খিলখিলিয়ে।
শান্তি পেল রাজ্যবাসী শান্তি পেল রাজা,
শান্তি পেল রাজ্য মাঝে ছিল যতেক প্রজা।
রাজকন্যার মুখের হাসি না যেন হয় ক্ষীণ, 
মুক্ত ঝরা হাসি সদাই থাকুক অমলিন।।

Leave a Reply

Your email address will not be published.